ইসি পুনর্গঠনে সার্চ কমিটিতে নাম দেবে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি

বাংলাদেশে নির্বাচন কমিশন (ইসি) পুনর্গঠনে প্রেসিডেন্টের গঠিত সার্চ কমিটিতে প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও অন্য কমিশনারদের নিয়োগের জন্য নাম দেবে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি।

সোমবার রাতে গণভবনে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে দলের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদ ও উপদেষ্টা পরিষদের যৌথ সভায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

জানা গেছে, সভায় উপস্থিত সবার কাছ থেকে নাম আহ্বান করেন দলের সভাপতি শেখ হাসিনা। সেখান থেকে পাঁচজনের নাম বাছাই করে দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের স্বাক্ষরিত একটি চিঠির মাধ্যমে আগামী মঙ্গলবার বিকেল ৩টার মধ্যে সার্চ কমিটি বরাবর পাঠানো হবে।

এ সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচন যেভাবে হয়েছে, আগামী দিনের নির্বাচনগুলোও সেভাবে অনুষ্ঠিত হবে।’ শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমরা চাই জনগণ ভোট দেবে। তাঁরা নিজেদের প্রতিনিধি নিজেরাই ঠিক করবে। এটা তাঁদের এখতিয়ার।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের লক্ষ্য অবাধ সুষ্ঠু নিরপেক্ষ নির্বাচন। আমরা গণতন্ত্রে বিশ্বাস করি। জনগণের ক্ষমতায়নে বিশ্বাস করি। মানুষ শান্তি চায়, না অশান্তি বেগমের অশান্তি চায়, সে সিদ্ধান্ত তারা নেবে।’
এদিকে, সোমবার রাতে দলের শীর্ষ নেতা ও জোটের শরিক দলগুলোর সঙ্গে দীর্ঘ আলোচনা শেষে সার্চ কমিটিতে নাম প্রস্তাবের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। বৈঠক শেষে বেরিয়ে যাওয়ার সময় বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সাংবাদিকদের এ কথা জানান। তিনি বলেন, নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই সার্চ কমিটিতে নাম প্রস্তাব করা হবে।

বিএনপির মহাসচিব আরো বলেন, রাষ্ট্রপতির সংলাপে অংশ নেয়া ২০ দলীয় জোটের শরিক দলগুলোও সার্চ কমিটিতে নাম প্রস্তাব করবে। তবে তাদের নামগুলো ভিন্ন ভিন্ন হবে।

এর আগে রাত ৮টায় গুলশান কার্যালয়ে বাংলাদেশ জাতীয় পার্টির (বিজেপি) চেয়ারম্যান ব্যারিস্টার আন্দালিব রহমান পার্থ, জাতীয় গণতান্ত্রিক পার্টির (জাগপা) সভাপতি শফিউল আলম প্রধান, বাংলাদেশ ন্যাপের সভাপতি জেবেল রহমান গাণি, বাংলাদেশ মুসলিম লীগের চেয়ারম্যান এ এইচ এম কারুজ্জামান খান, খেলাফত মজলিসের মহাসচিব ড. আহমেদ আব্দুল কাদের ও জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের সঙ্গে বৈঠক করেন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

জোট নেতাদের সঙ্গে বৈঠক শেষে ফাইলপত্র নিয়ে রাত পৌনে ১০টায় দলের চেয়ারপারসনের সঙ্গে বৈঠকে বসেন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। টানা তিন ঘণ্টা বৈঠক শেষে রাত পৌনে ১টায় বেরিয়ে যাওয়ার সময় সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন মির্জা ফখরুল।

গত ২৮ জানুয়ারি সার্চ কমিটির প্রথম বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহম্মদ শফিউল আলম সাংবাদিকদের জানান, যে ৩১টি দল রাষ্ট্রপতির সংলাপে অংশ নিয়েছে, তাদের আগামী ৩১ জানুয়ারি সকাল ১১টার মধ্যে পাঁচটি করে নাম প্রস্তাব করতে বলা হয়েছে। তবে সোমবার সন্ধ্যা পর্যন্ত কোনো নাম জমা পড়েনি বলে জানিয়েছেন মন্ত্রী পরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম। তিনি আরো জানিয়েছেন, নাম জমা দেয়ার ক্ষেত্রে মঙ্গলবার বেলা ৩টা পর্যন্ত সময় বাড়ানো হয়েছে।

সার্চ কমিটির ওই আহ্বানের পরের দিন ২৯ জানুয়ারি দলের সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী ফোরাম স্থায়ী কমিটির সঙ্গে বৈঠক করেন বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। মূলত, ওই বৈঠকেই সার্চ কমিটিতে নাম দেয়ার ব্যাপারে নীতিগত সিদ্ধান্ত হয়।

তবে জোট শরিকদের সঙ্গে আলোচনা করার পর এই সিদ্ধান্ত সংবাদমাধ্যমে জানানোর নির্দেশ দেন খালেদা জিয়া।

এরই প্রেক্ষিতে সোমবার (৩০ জানুয়ারি) বিকেলে নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে ২০ দলের মহাসচিবদের সঙ্গে বৈঠক করেন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। সন্ধ্যায় গুলশানে দলীয় প্রধানদের সঙ্গে বৈঠক করেন তিনি।

গত ২৫ জানুয়ারি প্রেসিডেন্ট মো. আবদুল হামিদ ইসি পুনর্গঠনের লক্ষ্যে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বে সার্চ কমিটি গঠন করেন। এই কমিটিকে ১০ কার্যদিবসের মধ্যে নতুন নির্বাচন কমিশন গঠনের জন্য নাম প্রস্তাব করতে বলা হয়। কমিটির সুপারিশ থেকে অনধিক পাঁচ সদস্য’র ইসি নিয়োগ দেবেন প্রেসিডেন্ট।

You Might Also Like