ইভিএম চেয়ে পার্থের রিটে সাড়া দেয়নি হাইকোর্ট

নিজের সংসদীয় আসন ভোলা-১ আসনে ইভিএমে ভোট গ্রহণের নির্দেশনা চেয়ে দায়ের করা রিট সরাসরি খারিজ করে দিয়েছেন হাইকোর্ট।

সোমবার বিচারপতি মো. আশফাকুল ইসলাম ও বিচারপতি মোহাম্মদ আলীর সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এই আদেশ দেন।

আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট আহসানুল করিম। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল আল আমিন সরকার।

এর আগে গত ৩০ নভেম্বর ভোলা-১ আসনে ইভিএমে নির্বাচন অনুষ্ঠানের দাবি জানিয়ে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) বরাবর চিঠি লিখেন আন্দালিব রহমান।

নির্বাচন কমিশন থেকে সাড়া না পেয়ে হাইকোর্টে রিট করেন পার্থ। আজ উপরোক্ত রিটের শুনানি নিয়ে আদালত তা সরাসরি খারিজ করে দিয়েছেন।

নির্বাচন কমিশনে দেওয়া চিঠিতে আন্দালিভ রহমান পার্থ লিখেছেন, ইভিএম ব্যবহারের জন্য সরকারি নিয়ম অনুযায়ী প্রয়োজনীয় ব্যয় বহন করতেও রাজি রয়েছেন।

ইসিকে লেখা চিঠিতে বিজেপি চেয়ারম্যান বলেছেন, ভোটাধিকারের মতো একটি গণতান্ত্রিক অধিকারের ক্ষেত্রে সমান সুযোগ সৃষ্টি করা না হলে, তা অত্যন্ত দুঃখজনক হবে।

অবশ্য বিএনপি ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট ইভিএমে ভোটের বিরোধিতা করে আসছে। তবে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন জোট ইভিএমে ভোটের পক্ষে।

এ নিয়ে আন্দালিব রহমান চিঠিতে লিখেছেন, ‘২০-দলীয় জোট এবং ঐক্যফ্রন্ট ইভিএম ব্যবহারের বিরুদ্ধে থাকা সত্ত্বেও ভোলার জনগণের দাবিকে সামনে রেখে বাংলাদেশ জাতীয় পার্টি-বিজেপি ভোলা সদর আসনে ইভিএম পদ্ধতির জন্য জোর অনুরোধ জানাচ্ছে। অন্যথায় এটা আমার এবং আমার নির্বাচনী আসন ভোলা-১ (সদর) এর জনগণের প্রতি বৈষম্যমূলক সিদ্ধান্ত হবে, যা কিনা বাংলাদেশের সংবিধানের ধারা ২৭-এর পরিপন্থী।’

এদিকে গত শনিবার নির্বাচন কমিশন (ইসি) জানিয়েছে, ৬টি আসনে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন ব্যবহারের সিদ্ধান্ত হয়। আসনগুলো হলো ঢাকা-৬, ঢাকা-১৩, চট্টগ্রাম-৯, খুলনা-২, রংপুর-৩ ও সাতক্ষীরা-২।

You Might Also Like