আমীর, শাহরুখ ও আজম খান ভারতের ভাবমূর্তি নষ্ট করছেন: সাধ্বী প্রাচী

ভারতের বিশ্ব হিন্দু পরিষদ নেত্রী সাধ্বী প্রাচী এক সাংবাদিক সম্মেলনে অভিযোগ করে বলেছেন, ‘অসহিষ্ণুতা নিয়ে শাহরুখ খান, আমীর খান এবং আজম খান বিবৃতি দিয়ে দেশের ভাবমূর্তি নষ্ট করছেন। এরা কংগ্রেস প্রেসিডেন্ট সোনিয়া গান্ধীর পাশাপাশি এ ধরণের কাজ করছেন।’

প্রসঙ্গত, শিবসেনার পক্ষ থেকে তাদের দলীয় মুখপত্র ‘সামনা’য় উত্তর প্রদেশের নগর উন্নয়ন ও সংখ্যালঘু বিষয়ক মন্ত্রী, সমাজবাদী পার্টির নেতা মুহাম্মদ আজম খানকে দাউদ ইব্রাহিমের চেয়ে সমাজবাদী পার্টির নেতা আজম খানকে বেশি বিপজ্জনক বলে অভিহিত করা হয়েছে। ‘সামনা’য় আরো মন্তব্য করে বলা হয়েছে, ‘যদি আমাদের দেশে এ ধরণের সাপ এবং কাঁকড়া বিছা থাকে তাহলে বাইরের শত্রুর আর কোনো প্রয়োজন হবে না।’

দাদরির ঘটনা প্রসঙ্গে সাধ্বী প্রাচী বলেছেন, ‘হিন্দুরা কখনো কোথাও দাঙ্গা শুরু করে না। কিন্তু কিছু লোক ইচ্ছাকৃতভাবে গো-হত্যা করে এবং বিফ পার্টির আয়োজন করে তাদের উস্কানি দিচ্ছে। এটা হিন্দু সম্প্রদায় কখনো সহ্য করবে না।’
সাধ্বী প্রাচী বিস্ময় প্রকাশ করে বলেছেন, ‘দাদরির ঘটনার জন্য উত্তর প্রদেশ সরকার কেন সিবিআই তদন্তের সুপারিশ করছে না! সিবিআইকে তদন্ত করতে দিন, সঠিক তথ্য সামনে চলে আসবে।’

সম্প্রতি উত্তর প্রদেশের দাদরিতে গরুর গোশত খাওয়া এবং তা বাসায় রাখার মিথ্যা অপবাদ দিয়ে মুহাম্মদ আখলাককে নৃশংসভাবে পিটিয়ে হত্যা করা হয় এবং তার পরিবারের উপরে উগ্র হিন্দুত্ববাদীরা হামলা চালায়।

উত্তর প্রদেশের অযোধ্যায় রাম মন্দির নির্মাণ প্রসঙ্গে সাধ্বী প্রাচী বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সময়েই ওই স্থানেই রাম মন্দির নির্মাণ হবে।’

মুসলিম নারীদের প্রসঙ্গে মন্তব্য করে তিনি বলেন, ‘মুসলিম নারীদের পর্দা থেকে বেরিয়ে আসা উচিত এবং তাদের স্বাধীনতার আনন্দ উপভোগ করা উচিত।’

অসহিষ্ণুতা প্রসঙ্গে মুখ খোলায় সম্প্রতি বিজেপির সংসদ সদস্য যোগী আদিত্যনাথ এবং বিশ্ব হিন্দু পরিষদ নেত্রী সাধ্বী প্রাচী শাহরুখ খানকে ‘পাকিস্তানি এজেন্ট’ আখ্যা দেন। একই প্রসঙ্গে চরম বিড়ম্বনা এবং কটুক্তির মুখে পড়তে হয় অভিনেতা আমীর খানকেও।

গতকাল বুধবার এক তথ্যে প্রকাশ, বলিউড অভিনেতা শাহরুখ খান সংঘ পরিবারকে খোঁচা দিয়ে বলেছেন, ‘কেউ যদি মনে করেন, তিনি আমার চেয়ে বেশি দেশপ্রেমী, তাহলে তিনি মূর্খ! মানুষ কীভাবে দাবি করতে পারে তিনি অন্যের চেয়ে বেশি দেশপ্রেমী? এ ধরণের দাবি করার পিছনে কোনো যুক্তি নেই। কেউ কেউ হঠাৎ চিৎকার করতে শুরু করেন, আমি তোমার চেয়ে দেশকে বেশি ভালোবাসি। আসলে আমরা সবাই দেশকে ভালোবাসি।’
‘নিজেকে সেক্যুলার প্রমাণ করার কোনো প্রয়োজন নেই’ বলেও মন্তব্য করেছেন শাহরুখ খান।

You Might Also Like