আমরা কেন হামলা করতে যাব: পুতিন

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন বলেছেন, তার দেশের সেনাবাহিনী কারো জন্যেই হুমকি নয় এবং কাউকে আক্রমণও করবে না। এ ছাড়া, রুশ সেনাবাহিনীর মহড়া আগের চেয়ে বহুগুণ বেড়েছে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

রাশিয়ার ইয়ারোস্ল্যাভেলে দেয়া ভাষণে এ সব কথা বলেন তিনি। পুতিন বলেন, রুশ সেনাবাহিনী কাউকেই হুমকি দিচ্ছে না। ‘যারা এ সভাকক্ষে উপস্থিত রয়েছেন কেবল তাদের নয় বরং সবাইকে জোর দিয়ে আবারো বলতে চাই যে, তারা যেন এ কথাটি শুনতে পান।

প্রতিবেশী দেশগুলো বিশেষ করে বাল্টিক সাগর তীরবর্তী দেশগুলোর ওপর রাশিয়া হামলা করতে চায় বলে যে অভিযোগ করা হয় তা তুলে ধরে তিনি প্রশ্ন করেন, কেন এ কাজ করবে রুশ বাহিনী?

রুশ বাহিনীর উন্নয়ন অব্যাহত থাকবে বলে ঘোষণা করে তিনি বলেন, দেশের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার সক্ষমতা রুশ সেনাবাহিনীর আছে। এ ছাড়া, সেনাবাহিনীর মহড়া কয়েক গুণ বেড়েছে বলেও এ সময়ে জানান তিনি। পাশাপাশি রুশ সেনাবাহিনীর প্রস্তুতি, অপ্রত্যাশিতভাবে পরিদর্শন এবং পরীক্ষা করে দেখার তৎপরতাও বেড়েছে বলে জানান তিনি।

রুশ বাহিনীর এ সব তৎপরতাকে অনেকেই ভয়ের চোখে দেখছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, তাদের ভয় পাওয়া অব্যাহত থাকুক। পাশাপাশি তিনি বলেন, অন্যান্য দেশ যখন সামরিক মহড়া চালায় রাশিয়া তো তখন ভয় পায় না!

এ ছাড়া, রুশ বাহিনীর কাঠামোগত পরিবর্তন অব্যাহত থাকবে বলেও ঘোষণা করেন পুতিন। তিনি বলেন, রুশ সেনাবাহিনীকে সংহত এবং কার্যকর হতে হবে ।

মার্কিন নেতৃত্বাধীন ন্যাটো জোট যখন বাল্টিক তীরবর্তী দেশগুলো এবং পোল্যান্ডে ‘যুদ্ধোপযোগী’ বাহিনী পাঠানোর প্রস্তুতি নিয়েছে তখন এ সব কথা বললেন পুতিন। ন্যাটো আগামী বছরের প্রথম দিকে রাশিয়ার কাছাকাছি এ রকম ৪০ হাজার সেনা মোতায়েন করবে। দ্বিতীয় মহাযুদ্ধের পর এটাই হবে রাশিয়ার কাছাকাছি সবচেয়ে বড় সংখ্যক পশ্চিমা সেনা মোতায়েন। প্রয়োজনে এর চেয়েও বেশি সেনা মোতায়েনর প্রস্তুতিও নিয়ে রেখেছে ন্যাটো।#

পার্সটুডে

You Might Also Like