আপিলের অনুমতি পেল বাংলাদেশ ব্যাংক

বিগত সেনা সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে ১৬টি প্রতিষ্ঠান ও দুই ব্যক্তির কাছ থেকে নেয়া ৭০৪ কোটি ৬৫ লাখ টাকা ফেরতের নির্দেশ সংক্রান্ত হাইকোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে আপিলের অনুমতি পেয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। প্রধান বিচারপতি এসকে সিনহার নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগের চার বিচারপতির বেঞ্চ লিভ টু আপিল মঞ্জুর করে গতকাল রবিবার এই আদেশ দেয়। একই সঙ্গে ছয় সপ্তাহের মধ্যে আপিলের সারসংক্ষেপ দাখিলের নির্দেশ দিয়েছে আদালত। তবে হাইকোর্টের রায়ের ওপর দেয়া স্থগিতাদেশ বহাল থাকবে।

এক এগারোর সময় দেশের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তির কাছ থেকে জরিমানার অর্থ সংগ্রহ করা হয়। পরবর্তীকালে এসব জরিমানার অর্থ বাংলাদেশ ব্যাংকের সরকারি কোষাগারে জমা দেয়া হয়। পরে এসব অর্থ ফেরত চেয়ে হাইকোর্টে রিট আবেদন দায়ের করে একাধিক প্রতিষ্ঠান। এসব রিট আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে হাইকোর্ট এস. আলম গ্রুপের সাতটি প্রতিষ্ঠানকে ৬০ কোটি টাকা, দি কনসোলিডেটেড টি অ্যান্ড ল্যান্ডস কোম্পানি লিমিটেড এবং বারাউরা টি কোম্পানি লিমিটেডকে ২৩৭ কোটি ৬৫ লাখ, মেঘনা সিমেন্টকে ৫২ কোটি, বসুন্ধরা পেপার মিল ও ইস্ট ওয়েস্ট প্রপার্টিকে ১৫ কোটি, ইউনিক ইস্টার্ন প্রাইভেট লিমিটেডকে ৯০ কোটি, ইউনিক সিরামিক ইন্ডাস্ট্রিজকে ৭০ লাখ, ইউনিক হোটেল অ্যান্ড রিসর্টসকে ১৭ কোটি ৫৫ লাখ, বোরাক রিয়েল এস্টেট প্রাইভেট লিমিটেডকে ৭ কোটি ১০ লাখ, ইস্টার্ন হাউজিং লিমিটেডকে ৩৫ কোটি এবং ইস্ট ওয়েস্ট প্রপার্টি ডেভেলপমেন্টের এক পরিচালককে ১৮৯ কোটি ও ইউনিক ভোকেশনাল ট্রেনিং সেন্টারের স্বত্ব্বাধিকারীকে ৬৫ লাখ টাকা ফেরত দেয়ার নির্দেশ দেয়। বিভিন্ন সময়ে দেয়া হাইকোর্টের এ রায় স্থগিতের আবেদন জানায় বাংলাদেশ ব্যাংক। ওই আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে আপিল বিভাগের চেম্বার আদালত হাইকোর্টের রায় স্থগিত করে দেয়। পাশাপাশি রায়ের বিরুদ্ধে লিভ টু আপিল দায়ের করতে বলা হয়। ওই লিভ টু আপিলের শুনানি নিয়ে আপিল বিভাগ গতকাল এই আদেশ দেয়। আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম, বাংলাদেশ ব্যাংকের পক্ষে ব্যারিস্টার এম আমীর-উল ইসলাম, রিট আবেদনকারীর পক্ষে ব্যারিস্টার রফিক-উল হক, অ্যাডভোকেট মাহমুদুল ইসলাম, ব্যারিস্টার শফিক আহমেদ, আহসানুল করিম, ব্যারিস্টার খায়রুল আলম চৌধুরী শুনানি করেন।

অ্যাটর্নি জেনারেল সাংবাদিকদের বলেন, ১/১১ পরে জোর করে টাকা নেয়ার অভিযোগ করে প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তি হাইকোর্টে ১১টি রিট আবেদন দায়ের করেছিল। এক রায়ে হাইকোর্ট ওই টাকা ফেরতের নির্দেশ দেয়। ‘আমরা বলেছি বাংলাদেশ ব্যাংক জোর করে টাকা নেয়নি। তারা স্বেচ্ছায় টাকা দিয়েছে। আদালত লিভ দিয়েছে। তাদের প্রত্যেকের তখনকার আয়কর বিবরণী সংক্রান্ত ফাইল দাখিল করতে আমাকে বলেছে।

You Might Also Like