হোম » আন্তর্জাতিক নারী দিবসে পিপল এন টেক’র আয়োজন

আন্তর্জাতিক নারী দিবসে পিপল এন টেক’র আয়োজন

admin- বৃহস্পতিবার, মার্চ ১৬, ২০১৭

সাবেদ সাথী, নিউ ইয়র্ক : যুক্তরাষ্ট্রের ভার্জিনিয়ায় ব্যতিক্রমী এক আয়োজনের মধ্য দিয়ে উদযাপিত হয়েছে আন্তর্জাতিক নারী দিবস। তথ্যপ্রযুক্তির ক্ষেত্রে নারীর ক্ষমতায়ন, কাজের সম্ভাবনা এবং নতুন প্রজন্মকে উৎসাহিত করার লক্ষ্যে গত শনিবার বিকেলে তথ্যপ্রযুক্তি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ‘পিপল এন টেক’ইন্সটিটিউট অফ টেকনোলজি এ বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

পিপল এন টেক-এর সভাপতি ফারহানা হানিপের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ভয়েস অব আমেরিকার বাংলা বিভাগের প্রধান রোকেয়া হায়দার,বিশেষ অতিথি পিপল এন টেক এর সিইও প্রকৌশলী আবুবকর হানিপসহ দেশি বিদেশি বরেণ্য ব্যক্তিবর্গ ও অতিথিরা উপস্থিত ছিলেন। গ্রেটার ওয়াশিংটন প্রবাসী ১২ জনেরও বেশি সফল নারীর জীবন সংগ্রাম ও সাফল্যের কথা তুলে ধরা হয়।

নারী উপস্থাপনা এবং নারীদের পরিচালিত এই অনুষ্ঠানে আগত অতিথিবৃন্দের সামনে নারী দিবসের এই বিশেষ দিনে তাদের জীবনের যে চিত্র তুলে ধরেন তা ছিল হৃদয়গ্রাহী এবং অনুকরনীয়।  ঘরে এবং কর্মে নারীদের অবদানের কথা অনুষ্ঠানে আগত অগ্রজ পুরুষরাও আন্তরিক ভাবে স্বীকার করে নারীদের মহিমান্বিত করেছে। পিপল এন টেকের এই ব্যতিক্রমী আয়োজনে নারীর প্রতি যে সন্মান প্রদর্শন করা হয়েছে তার জন্য অনুষথানে আগত সকলই পিপল এন টেকের সিইও আবু হানিপ এবং প্রেসিডেন্ট ফারহানা হানিপের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

ঢাকা ইউনিভার্সিটি এলামনাই ফোরাম এর ফাউন্ডার প্রেসিডেন্ট  শাহানাজ ফারুক, কো-ফাউন্ডার অব ফরওয়ার্ড হোপ  রেহানা পারভিন, ড. সীমা খান,  আগামী সাউথ ইস্ট চ্যাপ্টার এর প্রেসিডেন্ট  ফারজানা ক্লারা, মেট্রো ওয়াশিংটন মহিলা আওয়ামীলীগ এর প্রাক্তন সভাপতি মহসিনা রিমি, হৃদয়বীণা সংগঠনের প্রেসিডেন্ট রুমা ভৌমিক প্রমুখ সফল নারীদের গল্প তুলে ধরেন।

এছাড়া নিজেদের অভিজ্ঞতার কথা বলেন ‘পিপল এন টেক’ থেকে ট্রেনিং নিয়ে এখন উচ্চ বেতনে চাকরিপ্রাপ্ত ও প্রতিষ্ঠিত নুসরাত চৌধুরি, রোজিনা আক্তার  রুনি, তানিয়া আক্তার, উমা মেরি, বেবি বিউটি; বক্তব্য প্রদান করেন  ‘পিপল এন টেক’ এর ফ্যাকাল্টি আয়েশা আক্তার। অনুষ্ঠানে মেট্রো ওয়াশিংটন আওয়ামীলীগ সাধারন সম্পাদক মাহমুদুন নবী বাকি, প্রকৌশলী মাজহারুল হক, গ্রেটার ওয়াশিংটন ডিসি এর বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন এর প্রেসিডেন্ট এটর্নি এম আলমগির, উদয়ন সংগঠনের সিইও রেদয়ান চৌধুরী, সাংবাদিক অ্যান্থনি পিউস গোমেজ, বিসিসিডিআই এর প্রাক্তন সভাপতি মিজানুর ভুঁইয়া এবং প্রকৌশলী এম এ রশিদ, আলেকজান্দ্রা স্ট্যাব্লারসহ আরও অনেকে নারী অধিকার সংক্রান্ত বক্তব্য দেন। যেখানে উঠে আসে সকল কাজে নারীরা আজ পুরুষের সহযোদ্ধা হিসেবে অবদান রাখছে। অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন রেহানা পারভীন, রোজিনা আক্তার রুনী, মোহসিনা রিমি, ফারজানা ক্লেরা, রুমা ভৌমিক প্রমুখ।

অনুষ্ঠানের এক পর্যায়ে পিপল এন টেকের এর ফারহানা হানিপ শিক্ষার্থীদের জন্য স্কলারশীপ ঘোষণা করে বলেন, ৩ জন নারীকে জনপ্রতি ৪ হাজার ডলার করে মোট ১২ হাজার ডলার স্কলারশীপ দেয়া হলো। পিপল এন টেকের বৃত্তি প্রাপ্ত তিন নারীর হাতে বৃত্তির প্রত্যয়ন পত্র তুলে দেন অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথি রোকেয়া হায়দার।

অনুষ্ঠানে পিপল এন টেকের সিইও আবু হানিপ তাদের নতুন কোর্স ডাটাবেইজ এ্যাডমিনিস্ট্রেটর কোর্সের জন্য ১৫০০ ডলারের ডিসকাউন্টের ঘোষনা করেন। তিনি বলেন, আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষে এবং মেয়েদের এবং মেধাবীদের আইটিতে আগ্রহী করে তুলতেই আমরা এই পদক্ষেপ গ্রহন করেছি।

ডাটাবেইজ এ্যাডমিনিস্ট্রেটর খুবই আকর্ষনীয় একটি চাকরি যাতে কিনা একজন স্পেশাল সফটওয়ার ব্যবহার করে একটি কোম্পানির গুরুত্বপূর্ণ ডাটা সংরক্ষন ও বিন্যাস করার দায়িত্ব পালন করেন। তিনি বলেন, আমাদের এ প্রতিষ্ঠান থেকে কানাডা, ভার্জিনিয়া, নিউ ইয়র্ক, পেনসিলভানিয়া ও নিউজার্সিসহ  বিভিন্ন ষ্টেটে বসবাসকারী বাংলাদেশী, ভারতীয়, নেপালী, আফ্রিকান সহ বিভিন্ন দেশের ছাত্রছাত্রীরা প্রশিক্ষিত হচ্ছে।

তিনি আরও বলেন, পিপল এন টেক যাত্রা শুরু থেকে এ পর্যন্ত ৫ হাজাররের বেশি মানুষকে আইটিতে চাকরি পেতে সাহায্য করেছে। এছাড়াও বাংলাদেশি তরুণদের আইটি সেক্টরে দক্ষ হিসাবে গড়ে তুলতে পিপল এন টেক ব্যপক কার্যক্রম গ্রহণ করেছে। আন্তর্জাতিক নারী দিবসে পিপল এন টেকের এই ব্যতিক্রমী আয়োজনে উপস্থিত ছিলেন তানু মিলি, তিনি তার প্রতিক্রিয়াতে বলেন”  এই বিশেষ দিনটিতে অনুষ্ঠানের মধ্যমনি হয়ে ভয়েস অফ আমেরিকার বাংলা বিভাগের প্রধান রোকেয়া হায়দার আপার উপস্থিতি এবং বক্তব্য আমাদেরকে উদ্দীপিত করেছে আরো বেশি। নারীর অতিমানবিয়তা, আত্মবিশ্বাস, শিক্ষা অর্জন ও কর্মময় জীবনের সাথে প্রতিটি নারীর অগ্রযাত্রা ও  সফলতার ধারাবাহিকতা অটুট থাকুক । পৃথিবীর সর্বত্র অংশে বিনা লড়াইয়ে অর্জিত হোক প্রতিটি নারীর সন্মান, প্রাপ্যতা ও অধিকার।’নারী-পুরুষ সমতায় উন্নয়নের যাত্রা, বদলে যাবে বিশ্ব, কর্মে নতুন মাত্রা’।

মাহমুদুন নবী বাকি বলেন, ‘পিপল এন টেক’ থেকে যারা চাকরি পেয়ে আজ স্বাবলম্বী তাদের গল্প শুনে খুবই ভাল লেগেছে। প্রতিষ্ঠানটি বাংলাদেশ ও বাংলাদেশি কমিউনিটির জন্য অনেককিছু করছে। নারীর ক্ষমতায়নে বাংলাদেশ একটি উজ্জল দৃষ্টান্ত। আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা একজন নারী, সংসদ এবং মন্ত্রীসভায়ও প্রধান হিসেবে দায়িত্বরত আছেন অনেক নারী নেত্রী। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী নারী অধিকার ও ক্ষমতায়ন নিয়ে শুধু কথাই বলেননি, উনি সারা পৃথিবীর জন্য অনুকরণীয় ও অনুসরণীয় দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন। এছাড়া এটর্নি আলমগীর  ‘পিপল এন টেক’  কে অভিনন্দন জানান এবং তাদের উদ্দেশ্য করে বলেন তারা শুধু আইটিতেই লিডার নয় নারীদের ট্রেনিং এর মাধ্যমে স্বাবলম্বী করে তুলতে তাদের অবদান অনস্বীকার্য।

বক্তব্যের পর শুরু হয় স্কলারশিপ বিতরণী পর্ব। স্কলারশিপ গ্রহণকারী তিনজন নারী হলেন- মারিয়াম আল মজিদ ( আফগানিস্তান) ,মিতু মকোটি (বাংলাদেশ) এবং তামান্না শারমীন (বাংলাদেশ)। বিজয়ীরা প্রত্যেকেই ‘পিপল এন টেক’  থেকে বিনামূল্যে আই টি কোর্স করার সুযোগ পাবে। প্রতিষ্ঠানের সিইও প্রকৌশলী জনাব আবুবকর হানিপ বিজয়ীদের অভিনন্দন জানান এবং বলেন যে, নারী অধিকার প্রতিষ্ঠায় আমাদের যে আচরণ পরিবর্তনের প্রয়োজন তার সূচনা পরিবার থেকেই হওয়া উচিৎ; এবং তিনি এও বলেন, ‘আমি আমার মেয়ের সাথে যে আচরণ করি, আমি বাইরের মেয়েদের সাথেও একইরকম আচরণ করি এবং আমি মনে করি, সমাজের প্রতিটি মানুষের অন্য নারীদের প্রতি একইরূপ আচরণ হওয়া উচিত।  ‘পিপল এন টেক’-র এই স্কলারশিপ প্রদানের মূল উদ্দেশ্য হল, আই টি প্রশিক্ষণের মাধ্যমে মেয়েদেরকে স্বনির্ভর করে গড়ে তোলা।’ অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি রোকাইয়া হায়দার এ প্রসঙ্গে  বলেন, ‘পিপল এন টেক  যে কাজটি করছে তা সত্যিই প্রশংসার দাবি রাখে। তারা শুধু আইটি ট্রেনিং-ই দিচ্ছে না বরং ছেলে মেয়েদের চাকরির সুযোগ সৃষ্টি করে তাদের জব প্লেসমেন্ট এর ব্যবস্থা করছে এবং এভাবে তাদের স্বনির্ভর করে গড়ে তুলছে।  আন্তর্জাতিক নারী দিবসে তাদের এতো সুন্দর আয়োজনে আমি মুগ্ধ।’   তিনি পিপল এন টেক-র যেসব ছাত্র-ছাত্রীরা এখন আমেরিকায় কর্মরত আছেন তাদের গল্পগুলো শুনে বিমোহিত হন। এরকমও উদাহরণ আছে যে একই পরিবারের চারজন সদস্যই ‘পিপল এন টেক-র  মাধ্যমে আই টি তে ক্যারিয়ার তৈরি করেছেন।

অনুষ্ঠান সমাপ্ত হয় মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক আয়োজন দিয়ে, এ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে সংগীত পরিবেশন করেন নাফিসা নওসিন হানিপ ও ভিক্টোরিয়া হো। অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের অভিবাসীগণ ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন ভারত, পাকিস্তান, আফগানিস্তান, শ্রীলঙ্কা, নেপাল, ইথিওপিয়া এবং যুক্তরাষ্ট্রের অনেকে। অনুষ্ঠানে আরও অংশগ্রহণ করেন যুক্তরাষ্ট্রে অভিবাসী বাংলাদেশি কমিউনিটির শতাধিক গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিবর্গ।

-বাংলা প্রেস