আত্মঘাতী বোমা হামলাকে ‘অনৈসলামিক’ ফতোয়া পাকিস্তানের

পাকিস্তানের আঠারশোরও বেশি ধর্মীয় নেতা আত্মঘাতী বোমা হামলাকে ‘অনৈসলামিক’ অ্যাখ্যা দিয়ে ফতোয়া দিয়েছেন। মঙ্গলবার সরকারি পৃষ্ঠপোষকতায় প্রকাশিত একটি বইয়ে এই ফতোয়া দেওয়া হয়েছে।

দক্ষিণ এশিয়ার দেশটি বছরের পর বছর ধরে ইসলামি জঙ্গিদের লাগাতার সহিংসতার শিকার। ইসলামি শাসন কায়েম করতে এ জঙ্গি গোষ্ঠীগুলো তাদের তৎপরতা ও ধারাবাহিক আত্মঘাতী বোমা হামলা চালিয়ে আসছে।

বিপুল সংখ্যক সাধারণ মানুষের মৃত্যুর কারণে আত্মঘাতী হামলাকে ‘ধর্মান্ধ’ ও ‘অনৈতিক’ হিসেবে সাব্যস্ত করা হয়। তবে জঙ্গিদের কাছে এটি শক্তিশালী ‘অস্ত্র’ হিসেবে পরিচিত। ২০০০ সালের প্রথম থেকে সন্ত্রাসবাদের কারণে পাকিস্তানে লাখ লাখ মানুষ হতাহতের জন্য দায়ী‘সন্ত্রাসবাদ’ কমিয়ে আনতে ধর্মীয় নেতারা এবার আত্মঘাতী বোমা হামলাকে নিষিদ্ধ বা ‘হারাম’ বলে ঘোষণা দিলেন।

পাকিস্তানের ইন্টারন্যাশনাল ইসলামিক ইউনিভার্সিটির তৈরি করা বইটিতে প্রেসিডেন্ট মামনুন হোসেন বলেছেন, ‘আধুনিক ইসলামি সমাজের স্থিতিশীলতার জন্য এই ফতোয়া একটি শক্তিশালী ভিত্তি হিসেবে কাজ করবে।’

তিনি বলেন, ‘চরমপন্থা কমিয়ে আনার লক্ষ্যে জাতীয় আখ্যান সৃষ্টিতে এই ফতোয়া থেকে আমরা পথ নির্দেশনা পেতে পারি।’

ফতোয়াতে পাকিস্তানের ধর্মীয় নেতারা বলেছেন, ‘কোনো ব্যক্তি কিংবা গোষ্ঠীর জিহাদ ডাকা কিংবা তা পরিচালনার এখতিয়ার নেই।’আত্মঘাতী বোমা হামলা ইসলামের মূল শিক্ষার সঙ্গে সাংঘর্ষিক বিধায় এটি হারাম বলে মন্তব্য করেছেন তারা।

You Might Also Like