অসুস্থতাজনিত ছুটি ২৪ বছর!

এক দিন, দুই দিন নয়, বছরের পর বছর অসুস্থতার কারণ দেখিয়ে অফিস থেকে ছুটি নিয়েছেন এক ব্যক্তি। কিন্তু কারো গোচরে আসেনি বিষয়টি। আসলেও হয়ত কেউ আমলে নেয়নি। তারপর…।

তারপর আর কী, তিন দিন চোরের তো এক দিন মনিবের। অবশেষে ধরা খেয়েছেন। তবে ইতোমধ্যে ১০ বছর ছুটি কাটিয়ে ফেলেছেন তিনি। তদন্ত কমিটি গঠন হয় দুই বছর পর। ছাঁটাই করা হবে কিনা সেই সিদ্ধান্ত নিতে সময় লাগে আরো ১৫ বছর। ‘সৌভাগ্যক্রমে’ তাকে ছাঁটাইয়ের চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিতে সময় লাগে আরো সাত বছর!

এ সব প্রক্রিয়া চলাকালেও অফিসে যোগ দেননি ওই সরকারি কর্মকর্তা। অবশেষে মোটমাট ২৪ বছর ছুটি কাটানোর পর তাকে বরখাস্ত করতে সমর্থ হয় কর্তৃপক্ষ।

ঘটনাটি ভারতের এক সরকারি কর্মকর্তার। নাম এ কে বার্মা। তিনি ১৯৮০ সালে কেন্দ্রীয় গণপূর্ত বিভাগে ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে যোগ দিয়েছিলেন।

এক্সিকিউটিভ ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে ১৯৯০ সালে তিনি সিক লিভ-এ যান এবং এরপর তিনি আর অফিসে ফিরে আসেননি।

তার এই দীর্ঘ ছুটি নিয়ে কেন্দ্র সরকার ১৯৯২ সালে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে। কিন্তু তাকে সরকারি চাকরি থেকে ছাঁটাই করা হবে কি না, সেই প্রক্রিয়া শুরু হতে হতে ২০০৭ সালে এসে যায়।

আর তাকে ছাঁটাই করার চুড়ান্ত সিদ্ধান্তটি নিতে গণপূর্ত বিভাগের সময় লাগে আরো সাত বছর। তবে এই পুরো সময়টিতে বার্মাকে বেতন দেয়া হয়েছে কি না, সে সম্পর্কে কিছু জানা যায়নি।

বিবিসি সংবাদদাতারা জানান, ভারতের সরকারি অফিসগুলোতে কর্মকর্তাদের অফিস কামাই করার প্রবণতা প্রকট আকার ধারণ করেছে।

একই সমস্যা লক্ষ্য করা যাচ্ছে সরকারি স্কুলগুলোতে, যেখানে শিক্ষকরা ব্যাপক হারে কাস ফাঁকি দিচ্ছেন। গত আগস্ট মাসে মধ্যপ্রদেশের এক সরকারি স্কুল শিক্ষিকাকে ছাঁটাই করা হয়।

তার ২৪ বছরের চাকরি জীবনে তিনি ২৩ বছরই ছুটিতে ছিলেন।

You Might Also Like