অন্তরালে থেকেও নির্বাচনে জয়ী কুলসুম নওয়াজ

তিনি কখনো জনতার সামনে ভোট চাইতে আসেননি। কোনো নির্বাচনী প্রচারে দেখা যায়নি তাকে। তার পক্ষে মেয়ে প্রচার চালিয়েছেন। তবে অন্তরালে থাকলেও শেষ পর্যন্ত নির্বাচনে তারই জয় হলো।

বলছি, পাকিস্তানের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফের স্ত্রী কুলসুম নওয়াজের কথা। তিনি পার্লামেন্টের লাহোরের একটি আসনে উপনির্বাচনে বেসরকারি ফলাফলে বিজয়ী হয়েছেন।

রোববার পাঞ্জাব প্রদেশের লাহোরে পার্লামেন্টের ১২০ নম্বর আসনে উপনির্বাচনে ভোট গ্রহণ হয়। পানামা পেপার্স মামলায় নওয়াজ শরিফ প্রধানমন্ত্রী পদে অযোগ্য ঘোষিত হওয়ার পর আসনটি শূন্য হয়। এ আসন থেকে তিনবার নির্বাচন করে সংসদ সদস্য হয়েছিলেন নওয়াজ শরিফ।

২০১৩ সালে এই আসনে অনেক বেশি ভোটের ব্যবধানে জয়ী হয়েছিলেন নওয়াজ শরিফ। সে তুলনায় তার স্ত্রী কুলসুম কম ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন।

বেসরকারিভাবে উপনির্বচানের যে ফলাফল ঘোষণা করা হয়েছে, তা যাচাই করা যায়নি বলে পাকিস্তানের ডন ও এক্সপ্রেস ট্রিবিউনের অনলাইনে জানানো হয়েছে। বেসরকারি ফলাফল অনুযায়ী, কুলসুম নওয়াজ পেয়েছেন ৬১ হাজার ২৫৪ ভোট।

এ নির্বাচনে কুলসুম নওয়াজের প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী ইমরান খানের দল পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ পার্টির (পিটিআই) প্রার্থী ড. ইয়াসমিন রশিদ। তিনি পেয়েছেন ৪৭ হাজার ৬৬ ভোট।

নবগঠিত রাজনৈতিক দল মিল্লি মুসলিম লীগ উপনির্বাচনে প্রার্থী দিয়েছিল। এ দলের প্রার্থী ইয়াকুব শেখ তৃতীয় অবস্থানে রয়েছেন।

কুলসুম নওয়াজের এই জয়কে নওয়াজ শরিফের জয় হিসেবেই দেখা হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী পদে তাকে অযোগ্য ঘোষণার পর প্রথম নির্বাচন হলো, যেখানে লড়েছেন তার সহধর্মিণী কুলসুম। নির্বাচনে প্রচারের সময় কুলসুম নওয়াজ লন্ডনে চিকিৎসা করাচ্ছিলেন।

You Might Also Like