অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ

গাজীপুরের কালীগঞ্জ উপজেলার জাঙ্গালিয়া এলাকায় স্বামী মোবারক হোসেনের (২৬) বিরুদ্ধে তার চার মাসের অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

শুক্রবার সকালে নিহত গৃহবধূ আম্বিয়া খাতুনের (২০) বাবার পরিবারের সদস্যরা সাংবাদিকদের কাছে এই অভিযোগ করেছেন।

নিহত গৃহবধূ উপজেলার জাঙ্গালিয়া ইউনিয়নের বিনিরাইল গ্রামের শামসুদ্দিনের মেয়ে। অভিযুক্ত স্বামী জাঙ্গালিয়া এলাকার আব্দুল বাতেনের ছেলে। নিহত আম্বিয়ার লাশ হাসপাতালে রেখে স্বামী ও শ্বশুরসহ পরিবারের লোকজন পালিয়ে গেছে।

নিহতের চাচাত ভাই আব্দুল মান্নান জানান, তিন বছর আগে প্রেম করে আম্বিয়াকে বিয়ে করেন মোবারক। তাদের এক বছরের কন্য সন্তান রয়েছে। বৃহস্পতিবার বিকেলে পারিবারিক কলহের জেরে স্বামীসহ পরিবারের লোকজন আম্বিয়াকে পিটিয়ে গুরুতর আহত করে। পরে হাসপাতালে নেওয়ার পথে তার মৃত্যু হলে হাসপাতালে লাশ রেখে তারা কৌশলে পালিয়ে যায়। আম্বিয়া চার মাসের গর্ভবতী ছিলেন।

তিনি জানান, হত্যা ধামাচাপা দিয়ে একটি মহল তৎপর রয়েছে। তারা এখন হত্যাকে আত্মহত্যা বলে প্রচার করছে। এই ঘটনায় সঠিক বিচার পাওয়ার ব্যাপারে শঙ্কা প্রকাশ করছেন নিহতের পরিবার।

কালীগঞ্জ থানার পরিদর্শক মো. তরিকুল ইসলাম জানান, পারিবারিক বিষয় নিয়ে আম্বিয়ার সঙ্গে তার স্বামীর ঝগড়া হয়। আম্বিয়াকে মৃত অবস্থায় সন্ধ্যায় হাসপাতালে নেওয়া হয়। ঘটনার পর থেকে শ্বশুরবাড়ির লোকজন পালিয়ে গেছে।

গাজীপুরের শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক প্রণয়ভূষণ দাস জানান, ময়নাতদন্তের পর মৃত্যুর প্রকৃত কারণ বলা যাবে।

কালীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মো. আলম চাঁদ বলেন, পরিবার লোকজন পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ করেছেন। তবে পিটিয়ে মারার চিহ্ন পাওয়া যায়নি।

You Might Also Like